হিজাব পড়ার সময় যে বিষয়গুলো মাথায় রাখা প্রয়োজন

hijab tutorial

হিজাব পড়ার সময় যে বিষয়গুলো মাথায় রাখা প্রয়োজন

হিজাব একটি নেকাব যা মাথা এবং বুক আবৃত করে থাকে, এবং যা নির্দিষ্টভাবে বয়ঃসন্ধি বয়স থেকে মুসলিম নারীদের কর্তৃক পরিহিত হয় তাদের পরিবারের বাহিরের প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের প্রত্যক্ষতা এড়াতে এবং কিছু ব্যাখ্যা অনুযায়ী, প্রাপ্তবয়স্ক অ-মুসলিম মহিলারাও এটি পরিধান করে থাকে। এছাড়াও যে কোন মুসলিম নারী কর্তৃক এটি পরিহিত হয় তাদের মাথা, মুখ বা শরীর আবৃত করতে যা শালীনতাবোধের নিশ্চিত মানদণ্ড মেনে চলে। হিজাব এছাড়াও সার্বজনীন স্থানে পুরুষদের থেকে নারীদের অসম্পৃক্ত কারার ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হতে পারে, বা এটি সম্ভবত অধিবিদ্যামূলক ব্যাপ্তি অন্তর্ভুক্ত করে — আল-হিজাব নির্দেশ করে “একটি নেকাব যা ঈশ্বরের কাছ থেকে পুরুষ বা বিশ্বকে পৃথক করে থাকে।

বাহিরের দিক থেকে দেখলে হিজাব পরিধান করাটা খুব সহজ বিষয় মনে হয়, এটার ফলে আপনাকে আপনার চুলের বহিরাগত দিক নিয়ে চিন্তা করতে হয় না।

তবে সত্য কথা হয় , হিজাব হিসেবে স্কার্ফ পরিধান করা কতটা জটিল সেটা যারা পরিধান করে একমাত্র তারাই উপলব্ধি করতে পারে। এমন অনেক দিন আর সময় যায় যখন হিজাব পড়া নিয়ে ঝামেলা পোহাতে হয়। কখনো কখনো মনে হয় হিজাব পড়তে গিয়ে যে একই ভুল বার বার করা হচ্ছে। আমাদের সমাজের নারীরা হিজাব পরিধান করতে গিয়ে কিছু কমন ভুল করে থাকেন, পরবর্তী সময়ে হিজাব পরিধান করতে গেলে নিচের জিনিস গুলো মাথায় রেখে দিল সহজে হিজাব পড়তে পারবে।

১. আন্ডারস্কার্ফ আপনার মুখ এর আকৃতি পরিবর্তন করতে সাহায্য করবে এবং এটা নিশ্চিত হউন যে আপনার স্কার্ফ নিম্নমুখী ঝুলে যেন না থাকে। আপনার চুল যদি স্মুথ আর সিল্কি হয় তাহলে আপনি ডজন খানে পিন ব্যবহার করলেও আপনার হিজাব চুল থেকে স্লিপ করবে।

২. আপনি যদি পাতলা স্কার্ফ ব্যবহার করেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে আর কিছু কাজ করতে হবে হিজাব পরিধান এর সময়। আপনার হিজাবটি যদি খুব ছোট আর সংকীর্ণ হয়, তাহলে আপনি আপনার চুলকে সঠিকভাবে ঢাকতে অথবা সে স্টাইল টি আপনি পছন্দ করেন তার রূপ নাও দিতে পারেন। তাই বড় স্কার্ফ আর লম্বা স্কার্ফ ব্যবহার করাই শ্রেয়।

 

 

৩. আপনার স্কার্ফ কে কখনো স্ত্রি করবেন না, আপনি শুধু তখন এ হিজাব স্ত্রি করবেন যখন এটি কোকড়ানো হয়। আপনি যখন এটি স্ত্রি করবেন তখন এটি খুব নরম হয়ে যাবে এবং এটিকে খুব সহজে ব্যবস্থাপনা করতে পারবেন। তাছাড়া এভাবে আপনি দিনভর আপনার বেশভুষা উপভোগ করতে পারবেন এবং আপনাকে নতুন এর মত দেখাবে।

৪. অনেক হিজাবি তাদের স্কার্ফ এর সাইজ বাড়াতে স্ক্রাঞ্চি ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু কেউ কেউ আছেন খুব বেশি মাত্রায় এটার ব্যবহার করে ফেলেন। আপনি আপনার পনিটেইল এ আপনার চুল রাখুন এবং এটির আসে পাশে মোড়ান এটিই যথেষ্ট হবে ।

৫. দেখা যায় অনেক মেয়েই একাধিক স্কার্ফ পরিধান করে থাকে । একসাথে একাধিক স্কার্ফ পরলে নিজের ভিতর যেমন অস্বস্তি লাগে আর দেখতেও তেমন একটা ভালো দেখায় না। সত্যি ই যদি ভালো দেখাতে চাই তাহলে একটি সহজ স্কার্ফ এর যথেষ্ট।

৬. সালোয়ার কামিজের সঙ্গে অতিরিক্ত কিছু পোশাক পরে চলাফেরা কষ্টকর হয়ে পড়ে। যারা হিজাব পরা শুরু করেছেন তাদের নতুন অবস্থায় হিজাব পরতে অনেক সমস্যা দেখা দেয়। তাছাড়া বিভিন্ন স্টাইলে হিজাব পরা যায়। এ জন্য অনেক মেয়ে সালোয়ার কামিজের সঙ্গে ওড়নাকে হিজাব হিসেবে ব্যবহার করেন। যারা হিজাব পরেন প্রতিদিনকার হিজাবের স্টাইল হিসেবে তারা এটি অনুসরণ করতে পারেন। শুধু একটি ওড়না ব্যবহার করা হয় বলে এটি কম সময় সাপেক্ষ ও সহজও বটে। আসুন দেখে নেই।

৭. হিজাব পরার আগে অবশ্যই চুল বেঁধে নেবেন। চাইলে একটু টাইট খোঁপা করে নিতে পারেন এতে বাতাস চলাচলের সুযোগ পাবে।ছোট চুলগুলোকে সামলাতে হিজাবের নিচে আন্ডার ক্যাপ ব্যবহার করুন। এতে বেশি গরম মনে হলে নিজেই পছন্দমতো সুতির কাপড় কিনে বানিয়ে নিতে পারেন।

৮. যারা নতুন হিজাব করা শুরু করেছেন, প্রথমেই পরিপাটি করে হিজাব পরতে না পারলে চেষ্টা করুন। বাড়িতে বিভিন্ন ভাবে অনুশীলন করুন। দেখবেন আপনি নিজেই নতুন সব স্টাইল করতে পারছেন।

৯. যারা নতুন পরা শুরু করেছেন, হয়তোবা প্রথম প্রথম বেশ গরম লাগতে পারে। এতে অধৈর্য্য হবেন না। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে গরম ভাবও কমে যাবে।বাইরে যাওয়ার সময় ঝটপট হিজাব পরতে হাতের কাছে বিভিন্ন সাইজের সেফটিপিন, হিজাব পিন রাখুন।

 

হিজাব নারিকে আরো সুন্দর করে তোলে। বর্তমান যুগের ফ্যাশন হচ্ছে হিজাব।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *